Tuesday, October 26, 2021
Home Uncategorized বেপরোয়া বাবলু চেয়ারম্যানের যত অপকর্ম

বেপরোয়া বাবলু চেয়ারম্যানের যত অপকর্ম

ফয়সাল আহমেদ লিংকন, সিনিয়র করেসপন্ডেন্টঃ
গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার কামদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান মোশাহেদ হোসেন চৌধুরী বাবলুকে যেন থামানোই যাচ্ছে না। নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে একের পর এক দুর্নীতি আর অপকর্ম করেই চলছেন।

সাম্প্রতিক গত ৩১ আগষ্ট দুর্নীতি দমন কমিশনের দায়ের করা ২২ কোটি টাকার সরকারি চাল আত্মসাৎ মামলায় গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার ১৬ জন ইউপি চেয়ারম্যানের মধ্যে তিনিও একজন। দুদক সুত্রে জানা গেছে, বিগত ২০১৬-২০১৭ অর্থ বছরের ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান ও সভার নামে বরাদ্দকৃত চাল কালোবাজারির সাথে এই ১৬ জন চেয়ারম্যানসহ উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা জড়িত। বাবলু চেয়ারম্যান এই মামলার একজন আসামি।

এলাকার মানুষের কাছ থেকে নানা অভিযোগ উঠে এসেছে এই চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে। সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ভুমি দখলেও তিনি পিছিয়ে নাই, সাবেক ইউ’পি সদস্য শ্রী বৃন্দা মন্ডল (৬৫) এর সরকারী লিজকৃত জায়গায় অবস্থিত ছিলো তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। দীর্ঘ ৬০ থেকে-৬২ বছর যাবৎ বৃন্দা মন্ডলের পরিবার ওই জায়গায় ব্যবসা করে আসছে। বৃন্দা মন্ডল চেয়ারম্যান বাবলু চৌধুরীর পক্ষের লোক না হওয়ায় তিনি প্রায় ৬০ বছর পর নিজের পৈত্তিক জমি দাবী করে গত বছর ১৬ সেপ্টেম্বর বিকেলে ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয় থেকে মুঠোফোনে তার নিজস্ব সন্ত্রাসী বাহিনীকে বৃন্দা মন্ডলের ব্যবসার দোকানের ষ্টাটারের তালা ভেঙ্গে দখল করার নির্দেশ দেন। খবর পেয়ে বৃন্দা মন্ডল ও তার পরিবারের লোকজন বাঁধা দিলে চেয়ারম্যানের সন্ত্রাসী বাহিনী তাকে তুলে নিয়ে আসে ইউনিয়ন পরিষদে। এতে সন্ত্রাসীরা তাকে পিটিয়ে আহত করে। পরবর্তীতে সেই জমি নিজেদের বলে চেয়ারম্যান দখল করে নেয়।

চলতি বছর সরকারি কর্মসূচির লোক দিয়ে ব্যক্তিগত কাজ করানোর অভিযোগও আছে তার বিরুদ্ধে। জানা যায়, এক নারীর ব্যক্তিগত পুকুর সরকারি প্রকল্পের কর্মসূচির লোক দিয়ে তিনি খনন করে দিচ্ছিলেন। এই সংবাদ জানতে পেরে স্থানীয় সাংবাদিকেরা সেখানে উপস্থিত হলে কর্মসূচির লোকজন পালিয়ে যায়। সেই নারীকে সাংবাদিকেরা প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, চেয়ারম্যান কাজ করে দিলে আমার কি করার আছে।

গত মে মাসে নিয়মবহির্ভূত ভাবে ইউনিয়ন পরিষদের কোটি টাকা মূল্যের সরকারি গাছ নামমাত্র মুল্যে বিক্রি করে দেবার অভিযোগ আছে। শুধু নিজ ইউনিয়নের গাছ নয় পাশ্ববর্তী শাখাহার ইউনিয়নের গাছও তিনি উক্ত ইউনিয়নের চেয়ারম্যানকে না জানিয়ে গোপনে টেন্ডারের মাধ্যমে বিক্রি করে দেয়, যা পরবর্তীতে শাখাহার ইউনিয়নের চেয়ারম্যান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট এ বিষয়ে অভিযোগ দাখিল করেন।

এলাকায় সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, এই চেয়ারম্যানের ক্ষমতার অপব্যবহার আর অপকর্মের কথা। স্থানীয় সংসদ সদস্য তার আপন বড় ভাই সে সুবাদে তিনি ধরাকে সরা জ্ঞান করেন।
ইউনিয়নের চালিতা গ্রাম জামে মসজিদের দীর্ঘ দুই যুগের লিজকৃত সরকারি পুকুর তিনি মসজিদ কমিটির কাছ থেকে কেড়ে নিয়ে তার স্ত্রীর নামে দিয়েছেন। বর্তমানে সেই পুকুরে তার স্ত্রী মাছ চাষ করেন। যদিও লোক দেখানোর নামে তার এক আত্মীয়ের পুকুর বলে দাবি করেন।

এ বিষয়ে চালিতা গ্রাম জামে মসজিদ পরিচালনা কমিটির সেক্রেটারি হাজি আব্দুর রশিদ বলেন, চেয়ারম্যান আমাদেরকে পুকুরটি দেবার কথা বলে ১ লক্ষ টাকা নিয়েছিলেন কিন্তু অজানা কারণে তিনি সেই পুকুর আমাদের কাছে না দিয়ে তার স্ত্রীকে দিয়েছেন। আমরা তাকে বলেছিলাম, দীর্ঘ দুই যুগের বেশি সময় আমরা পুকুরটি চাষ করি মসজিদের উন্নয়ন কাজের জন্য, আপনি এই পুকুর কেড়ে নিবেন না তারপরও তিনি আমাদের কথা শুনেননি।

একই গ্রামের শহিদুল নামে এক ব্যক্তি জানান, আমাদের গ্রামের কবরস্থানের নামে যে বরাদ্দ সংসদ সদস্য দিয়েছিলেন সেটিরও তিনি কোনো কাজ না করে টাকা উত্তোলন করে নিয়েছেন। আজ করে দিবো কাল করে দিবো বলে বেশ কয়েক বছর অতিবাহিত হলেও তিনি কবরস্থানের কাজ আর করেননি।

সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রীর মুজিব বর্ষের উপহার দেয়া ঘর তিনি তার পছন্দের মানুষকে দিয়েছেন। অভিযোগ পাওয়া গেছে এইসব ঘর যাদের জমি এবং যারা পুকুর চাষ করেন এমন স্বাবলম্বী মানুষ যারা তার কাছের লোক সেইসব মানুষদের তিনি দিয়েছেন। এ প্রসঙ্গে যুবলীগের সাবেক এক নেতা জানান, তিনি নিজেও ভুমিহীন অথচ চেয়ারম্যান কে বলার পরও তার জন্য একটা ঘর বরাদ্দ দেয়া হয়নি।

বিভিন্ন পেশার মানুষের সাথে কথা বলে জানা গেছে, তার এইসব অপকর্ম আর অন্যায় কাজের প্রতিবাদ করলেই তিনি তাদের হয়রানি এমনকি মিথ্যা মামলা দিয়ে ভয়ভীতি প্রদর্শন করেন। দুর্নীতিবাজ এই চেয়ারম্যানকে আর ক্ষমতার চেয়ারে দেখতে চায় না বলে জানিয়েছে ইউনিয়নের সর্বস্তরের সাধারণ মানুষ।

ইউনিয়নের একাধিক সাধারণ মানুষ এই প্রতিবেদককে জানিয়েছে যে, তিনি যদি এবার নৌকা প্রতীক পান তবে এখানে ভরাডুবি হবে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের এক নেতা বলেন, কোনো স্বচ্ছ ব্যক্তি ছাড়া এখানে যদি আবারও বাবলু চেয়ারম্যাকে নৌকা প্রতিক দেয়া হয় তবে সেটা বুমেরাং হয়ে যাবে আওয়ামী লীগের রাজনীতির জন্য।
এই দুর্নীতিবাজ চেয়ারম্যানকে ইতিমধ্যেই বয়কটের ঘোষণা দিয়েছে ইউনিয়নের সাধারণ মানুষ।

- Advertisment -

Most Popular

চলে গেলেন অভিনেতা মাহমুদ সাজ্জাদ

বিডিনিউজ টোয়েন্টিসিক্স ডেস্কঃ না ফেরার দেশে চলে গেলেন দেশের জনপ্রিয় অভিনেতা মাহমুদ সাজ্জাদ। আজ রোববার (২৪ অক্টোবর) রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিশ্বাস...

বিশ্বজুড়ে করোনায় ৪৯ লাখ ৬৩ হাজার ৫০৪ জনের মৃত্যু

বিডিনিউজ টোয়েন্টিসিক্স ডেস্কঃ চলমান করোনা মহামারিতে বিশ্বজুড়ে দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যা আরও কমেছে। একইসঙ্গে আগের দিনের তুলনায় কমেছে নতুন শনাক্ত রোগীর সংখ্যাও। গত ২৪ ঘণ্টায় সারা...

ভারতকে ১০ উইকেটে হারালো পাকিস্তান

বিডিনিউজ টোয়েন্টিসিক্স ডেস্কঃ দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ইতিহাস গড়লো পাকিস্তান। বরং বলা ভালো ইতিহাস গড়লেন বাবর আজম এবং মোহাম্মদ রিজওয়ান। ভারতের মত শক্তিশালী প্রতিদ্বন্দ্বীকে তারা...

কুরআন অবমাননার ঘটনায় ইকবাল গ্রেফতার

বিডিনিউজ টোয়েন্টিসিক্স ডেস্কঃ কুমিল্লায় পবিত্র কুরআন অবমাননার ঘটনায় আলোচিত যুবক ইকবাল হোসেনকে কক্সবাজার থেকে গ্রেফতার করার পর কুমিল্লায় আনা হয়েছে। শুক্রবার (২২ অক্টোবর) সকালে ইকবালকে নিয়ে...

Recent Comments